সোমবার | ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
শ্রীমঙ্গলের সেন্ট মার্থাস উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরনী ফুলতলা ইউনিয়নে আইনশৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজারে একতা যুব সংস্থার তাফসিরুল কোরআন মাহফিল ৩০ জানুয়ারি শীতার্ত মানুষের কল্যাণে স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সোসাইটির শীতবস্ত্র বিতরণ ‘বলাই-সজীব ভাই-ভাই, এক দড়িতে ফাঁসি চাই’ কুশিয়ারা পাড়ের ঐতিহ্যবাহী পৌষ সংক্রান্তির মাছের মেলা অদক্ষ চালক কেড়ে নিল প্রাণ; নতুন বই নিয়ে বাড়ি ফিরা হল না খাদিজার কুলাউড়ায় ঐতিহ্যবাহী ‘মাছের মেলা’ নবনির্বাচিত কৃষিমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়েছে জেলা আওয়ামিলীগ শ্রীমঙ্গলে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে ত্রিপুরা পল্লীতে শীতবস্ত্র বিতরন

দেশে চা উৎপাদনে শীর্ষে মৌলভীবাজার!

সামাদ আহমেদ আবির
প্রকাশিত: সোমবার, ২৯ মে, ২০২৩, ৮:৫১ পূর্বাহ্ণ
দেশে চা উৎপাদনে শীর্ষে মৌলভীবাজার!

দেশে চা উৎপাদনে শীর্ষে অবস্থান করছে বৃহত্তর সিলেটের মৌলভীবাজার জেলা। চা উৎপাদনে মৌলভীবাজার জেলার গুরুত্ব অপরিসীম। দেশে সবচেয়ে বেশি চা উৎপাদন করে মৌলভীবাজার জেলা জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে।

বাংলাদেশ চা বোর্ড সূত্র জানায়, ২০২২ সালে দেশে ৯৩.৮৩ মিলিয়ন কেজি অর্থাৎ ৯ কোটি ৩৮ লাখ ২৯ হাজার ১৬২ কেজি চা উৎপাদিত হয়েছে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৪ কোটি ৪৮ লাখ ১ হাজার ১০৩ কেজি চা উৎপাদন হয়েছে মৌলভীবাজার জেলায়।

দেশে চা উৎপাদনে ২০২২ সালে ২য় অবস্থানে স্থান করে নিয়েছে পঞ্চগড় জেলা। গত বছর (২০২২) পঞ্চগড়ে চা উৎপাদন হয়েছে ১ কোটি ৭৭ লাখ ৮১ হাজার ৯৩৮ কেজি। এছাড়া ১ কোটি ৪৭ লাখ ৫৭২ কেজি চা উৎপাদন করে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে হবিগঞ্জ জেলা।

এছাড়াও চট্টগ্রামে ১ কোটি ১০ লাখ ৬৮ হাজার ৪৩৪ কেজি, সিলেটে ৫৪ লাখ ১০ হাজার ৭২৪ কেজি, রাঙামটি জেলায় ৫৯ হাজার ১০৫ কেজি এবং বান্দরবানে ৭ হাজার ২৮৪ কেজি চা উৎপাদন হয়েছে। দেশে গড় চা উৎপাদনের পরিমান প্রতি হেক্টরে ১৬৪০ কেজি।

চা বোর্ডের তথ্যমতে এ পরিসংখ্যান অনুযায়ী মৌলভীবাজার জেলা চা উৎপাদনে দেশে শীর্ষে অবস্থান করছে এবং দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে।

বাংলাদেশ চা বোর্ডের শ্রীমঙ্গলে অবস্থিত প্রকল্প উন্নয়ন ইউনিট (পিডিইউ) সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশে ১৬৮টি চা-বাগান রয়েছে। তন্মধ্যে মৌলভীবাজার জেলায় সর্বাধিক ৯০টি, হবিগঞ্জে ২৫টি, চট্টগ্রামে ২৩টি, সিলেটে ১৯টি, পঞ্চগড়ে ৮টি, রাঙামাটিতে ২টি এবং ঠাঁকুরগাওয়ে ১টি চা-বাগান রয়েছে। দেশে বর্তমানে চা বাগানের নার্সারিসহ মোট চা চাষাধীন জমির পরিমান ১ লাখ ৫৪ হাজার ৯৫৩ একর। চা-বাগানে ভবিষ্যতে রোপনযোগ্য জমির পরিমান ১৭ হাজার ৭৯ একর।

বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের শ্রীমঙ্গলে বছরব্যাপী পর্যাপ্ত বৃষ্টি হওয়ায় এখানে চা উৎপাদনও বেশি। শ্রীমঙ্গলে রয়েছে ছোট-বড়, ফাঁড়ি বাগান মিলে ৪৪টি চা-বাগান। প্রতি বছরই এসব চা-বাগানের পরিধি বাড়ছে। তাছাড়া শ্রীমঙ্গলে দেশের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক চা নিলাম কেন্দ্র চালু হওয়ায় এখানে চা উৎপাদনে নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে বলে মনে করছেন চা বাগান মালিক ও চা বোর্ড।

চা বোর্ডের তথ্যমতে, ২০২২ সালে দেশে ১০ কোটি কেজি চায়ের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও উৎপাদন হয়েছে কিছুটা কম অর্থাৎ উৎপাদন হয়েছে ৯ কোটি ৩৮ লাখ ২৯ হাজার কেজি। তবে চলতি বছর চায়ের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ১০ কোটি ২০ লাখ কেজি। বৃষ্টিপাত, তাপমাত্রাসহ আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে চা উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে বলে মনে করছে চা বোর্ড ও চা শিল্প সংশ্লিষ্টরা।

 

কামরান/সামাদ


আরও পড়ুন
Hexus IELTS