মঙ্গলবার | ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
শ্রীমঙ্গলের সেন্ট মার্থাস উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরনী ফুলতলা ইউনিয়নে আইনশৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজারে একতা যুব সংস্থার তাফসিরুল কোরআন মাহফিল ৩০ জানুয়ারি শীতার্ত মানুষের কল্যাণে স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সোসাইটির শীতবস্ত্র বিতরণ ‘বলাই-সজীব ভাই-ভাই, এক দড়িতে ফাঁসি চাই’ কুশিয়ারা পাড়ের ঐতিহ্যবাহী পৌষ সংক্রান্তির মাছের মেলা অদক্ষ চালক কেড়ে নিল প্রাণ; নতুন বই নিয়ে বাড়ি ফিরা হল না খাদিজার কুলাউড়ায় ঐতিহ্যবাহী ‘মাছের মেলা’ নবনির্বাচিত কৃষিমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়েছে জেলা আওয়ামিলীগ শ্রীমঙ্গলে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে ত্রিপুরা পল্লীতে শীতবস্ত্র বিতরন

শনিবার পৃথিবী ও চাঁদের কক্ষপথের মধ্য দিয়ে যাবে ‘সিটি কিলার’ গ্রহাণু

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিত: শনিবার, ২৫ মার্চ, ২০২৩, ২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

‘সিটি কিলার’ গ্রহাণু ‘২০২৩ডিজেড২’ আজ শনিবার (২৫ মার্চ) পৃথিবীর খুব কাছাকাছি উড়ে যাবে। মার্কিন সংবাদ মাধ্যম সিএনএনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, যেহেতু গ্রহাণুর নামের পাশেই ‘কিলার’ শব্দটি রয়েছে, যে কেউ এর নাম শুনলে চমকে যেতে পারেন। কিন্তু চিন্তা করবেন না, এটি পৃথিবীর পাশ দিয়ে গেলেও আমাদের গ্রহের কোনো ক্ষতি করবে না।

‘২০২৩ডিজেড২’ নামের গ্রহাণুটি শনিবার পৃথিবী ও চাঁদের কক্ষপথের মধ্য দিয়ে যাবে। তখন পৃথিবী থেকে গ্রহাণুর দূরত্ব হবে ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৪০০ কিলোমিটার। অন্যদিকে, চাঁদ থেকে এই গ্রহাণুর দূরত্ব হবে ১ লাখ ৭০ হাজার কিলোমিটার। গ্রহাণুর আকার মাত্র ১৩১ থেকে ৩২৮ ফুট।

যদিও বায়ুমণ্ডলে এই আকারের অসংখ্য গ্রহাণু রয়েছে, তবে এটি আলাদাভাবে আলোচনা করা হয়েছে। জ্যোতির্বিজ্ঞানী রিচার্ড মোইসি সিএনএনকে জানিয়েছেন, এই গহাণুটির বিশেষত্ব হলো, এটি অনেক বিরল। এই আকারের একটি বস্তুর পক্ষে পৃথিবীর এতো কাছে দিয়ে যাওয়া অস্বাভাবিক। এটি প্রতি দশ বছরে একবার হয়।

পৃথিবীর কাছাকাছি আসার পর বিজ্ঞানীরা এই গ্রহাণুটির আকার ও বৈশিষ্ট্য নিয়ে আরও গবেষণা করতে সক্ষম হবেন। জ্যোতির্বিজ্ঞানী রিচার্ড মোইসি জানিয়েছেন, গ্রহাণুর নামের সঙ্গে ‘সিটি কিলার’ শব্দটি যুক্ত করা হয়েছে দুটি গ্রহাণুর উপর ভিত্তি করে, যা পৃথিবীকে প্রভাবিত করেছিল।

১৯০৮ সালে তুংসা ঘটনার সময় একটি গ্রহাণু পৃথিবীতে একটি শকওয়েভ পাঠিয়েছিল। ফলে সাইবেরিয়ার ২ হাজার কিলোমিটার বনভূমি ধ্বংস হয়ে যায়। এছাড়াও, প্রায় ৫০ হাজার বছর আগে একটি লোহার গ্রহাণু বর্তমান যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনায় ১ দশমিক ২ কিমি প্রশস্ত এলাকায় ১৮০ কিলোমিটার গভীর খাদ তৈরি করেছিল।

মইসি আরও জানিয়েছেন, যখন একটি মহাকাশের কোনো বস্তু পৃথিবীর কক্ষপথে প্রবেশ করে এবং মাটিতে জোরে আঘাত করে এবং যদি ঘটনাটি জনবসতিহীন এলাকায় ঘটে, তখন চিন্তার কিছু নেই। কিন্তু যদি তা কোনো শহরে আঘাত করে তবে সেই শহর ধ্বংস হয়ে যাবে।

যার কারণে শহর থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিতে হবে। কারণ, এই আকারের গ্রহাণুগুলো একটি শহরকে ধ্বংস করতে পারে, তাই তাদের বলা হয়, শহর হত্যাকারী বা ‘সিটি কিলার’। সূত্রঃ ইত্তেফাক


আরও পড়ুন
Hexus IELTS