মঙ্গলবার | ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম
শ্রীমঙ্গলের সেন্ট মার্থাস উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরনী ফুলতলা ইউনিয়নে আইনশৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজারে একতা যুব সংস্থার তাফসিরুল কোরআন মাহফিল ৩০ জানুয়ারি শীতার্ত মানুষের কল্যাণে স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ার সোসাইটির শীতবস্ত্র বিতরণ ‘বলাই-সজীব ভাই-ভাই, এক দড়িতে ফাঁসি চাই’ কুশিয়ারা পাড়ের ঐতিহ্যবাহী পৌষ সংক্রান্তির মাছের মেলা অদক্ষ চালক কেড়ে নিল প্রাণ; নতুন বই নিয়ে বাড়ি ফিরা হল না খাদিজার কুলাউড়ায় ঐতিহ্যবাহী ‘মাছের মেলা’ নবনির্বাচিত কৃষিমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়েছে জেলা আওয়ামিলীগ শ্রীমঙ্গলে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে ত্রিপুরা পল্লীতে শীতবস্ত্র বিতরন

নৌকার সুলতান কি ফের নৌকায় ফিরছেন?

দেলাওয়ার হোসেন, জুড়ী
প্রকাশিত: শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ
নৌকার সুলতান কি ফের নৌকায় ফিরছেন?

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের হয়ে ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করা মৌলভীবাজার-২ (কুলাউড়া) আসনের সংসদ সদস্য সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ কি আওয়ামী লীগের ফিরছেন এমন গুঞ্জন উঠেছে সর্বমহলে। শুক্রবার (১ সেপ্টেম্বর) ছাত্রলীগের সমাবেশ অনুষ্ঠানে সুলতান মনসুরের উপস্থিতি রাজনীতিতে শুরু করেছে নতুন হিসাব-নিকাশ। আগামী সংসদ নির্বাচনে এ আসনে কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি তা নিয়ে কানাঘুষা চলছে। সবার ধারণা এবারও চমক অপেক্ষা করছে সারা দেশজুড়ে আলোচিত এই আসন নিয়ে। গত সংসদ নির্বাচনেও এই আসন নিয়ে সারা দেশে আলোচনার ঝড় বয়েছিল।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসনে ডিগবাজি দিয়েছিলেন আলোচিত দুই সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী সুলতান ও শাহীন। বিএনপির সাবেক এমপি এম এম শাহীন বিকল্পধারায় যোগ দিয়ে নৌকা বাগিয়ে নিয়েছিলেন। অপরদিকে আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য ও ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন। সেই নির্বাচনে সুলতান ৭৯ হাজার ৭৪২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। অপরদিকে শাহীন পান ৭৭ হাজার ১৭০ ভোট।

দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ ছিলেন এ আসনে নৌকার কাণ্ডারী। ১৯৮৬ সালে তিনি ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। তারপর ১৯৮৯ সালে ডাকসুর ভিপি হন। ছাত্রলীগ থেকে নির্বাচিত ডাকসুর ভিপি একমাত্র সুলতান। ২০০২ সালে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সুলতান মনসুর সাংগঠনিক সম্পাদক পদে আসীন হন। অপরদিকে ১৯৯৬ সালে এমপি নির্বাচিত হয়ে তিনি কুলাউড়ায় ব্যাপক উন্নয়ন করেন। কিন্তু ২০০৮ সালে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন তিনি। কিন্তু ২০১৮ সালের নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের মূলসারির নেতা হিসেবে তার আবির্ভাব ঘটে এবং ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করে বাজিমাত করেন।

ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করে এমপি হলেও জয় বাংলা ও জয় বঙ্গবন্ধুকে ভুলে যাননি সুলতান মনসুর। নির্বাচনকালে ধানের শীষে ভোট চাইলে বিএনপির নেতাকর্মীরা তার জন্য জানপ্রাণ দিয়ে মাঠে কাজ করেন। তবে নির্বাচনের পরই তিনি সুর পাল্টে বলেন, তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করেন। তিনি আওয়ামী লীগ ছেড়ে যাননি বরং আওয়ামী লীগেই আছেন।

এমপি নির্বাচিত হবার পর স্থায়ীভাবে ঢাকায় বসবাস করতে থাকেন সুলতান মনসুর। মাঝে মধ্যে নির্বাচনী এলাকায় আসেন। জাতীয় এই নেতা আগামী সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক না পেলে নির্বাচন না করার ঘোষণা ইতোমধ্যে দিয়েছেন।

সুলতান মনসুর বলেন, ‘আমি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন চাইবো, নৌকা পেলে নির্বাচন করব, না পেলে নীরব থাকব’। সুলতান মনসুর আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা হলেন দলের সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী। তিনি মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করব। না দিলে তার সিদ্ধান্ত মেনে নেব।’

শুক্রবার বিকেল তিনটায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সমাবেশ রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব স্মরণে এই সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সভাপতিত্ব করেন ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেন। সেখানে ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুলাউড়া আসনের সাংসদ ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ওই অনুষ্ঠানের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার সাথে সাথে দেশ-বিদেশে নতুন করে আলোচনা উঠেছে। অবশ্য এই আলোচনার সূত্রপাত হয়েছিল গত আগস্ট মাসে লন্ডন থেকে শেখ রেহানার সঙ্গে সুলতান মনসুর বিমানে পাশাপাশি বসে ফেরার ছবি প্রকাশ হবার পরেই। সুলতান মনসুর যদি দলে ফেরেন তাহলে নতুন করে আবার এই আসনের হিসাব করতে হবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।


আরও পড়ুন
Hexus IELTS